Hypothesis

                                          Hypothesis                                         

পূর্বানুমান হচ্ছে পরীক্ষামূলক সর্বজন স্বীকৃত একটি অনুমান/ধারণা যেটি বৈধতা পরীক্ষণের জন্য গ্রহণ করা হয়। প্রাথমিক পর্যায়ে পূর্বানুমান কোন ধারণা বা অনুমান হিসেবে মনে করা হয় এবং পূর্বানুমানের উপর ভিত্তি করে এটি গ্রহণ করা হয়। অনুসন্ধানের মাধ্যমে ঐ ধারণাটির সঠিক ব্যাখ্যা জানার জন্য পূর্বানুমান করা হয়। পূর্বানুমানের উপর ভিত্তি করে বিভিন্ন বিষয়ে পর্যবেক্ষণ করা হয় এবং তথ্য সংগ্রহ করা হয়। সে সব তথ্যের সাহায্যে ধারণাটির সত্যতা যাচাই করা হয়। এরপর ধারণাটি গ্রহণ বা বর্জন করা হয়। যখন অনুসন্ধান এবং প্রাপ্ত তথ্যের ভিত্তিতে পূর্বানুমানটি সত্য বলে প্রমাণিত হয় তখন তা একটি মতাদর্শ বা থিউরি হিসেবে গ্রহণ করা হয়।

যেমনঃ সরকার থেকে বৃত্তি পাওয়ার কারণে মেয়েদের শিক্ষার হার বৃদ্ধি পাচ্ছে। এটি একটি পূর্বানুমান। এর উপর ভিত্তি করে বিভিন্ন অনুসন্ধান এবং তথ্যের মাধ্যমে এর সত্যতা যাচাই করা হবে এবং যখন এটি সত্য বলে প্রমাণিত হবে তখন এটি একটি মতবাদ বা থিউরিতে রূপ লাভ করবে।

ÿ পূর্বানুমানের কার্যাবলীঃ

সামাজিক গবেষণায় পূর্বানুমানের কার্যাবলী অনস্বীকার্য। সদা পরিবর্তনশীল সমাজে বিভিন্ন বিষয় নিয়ে অনুসন্ধান পরিচালনার ক্ষেত্রে পূর্বানুমান অন্যতম চালিকাশক্তি হিসেবে কাজ করে। নিচে পূর্বানুমানের কার্যাবলী বর্ণনা করা হলো-

 

১। তথ্যের সঠিক ব্যাখ্যা প্রদানঃ

পূর্বানুমানের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ কাজ হচ্ছে পূর্বানুমানের সাথে সংশ্লিষ্ট তথ্যগুলো সঠিক এবং স্পষ্টভাবে ব্যাখ্যা করা।

 

২। তথ্য সংগ্রহঃ

পূর্বানুমান সঠিক পথে তথ্য সংগ্রহ করতে সহায়তা করে থাকে। এক্ষেত্রে পরীক্ষণ বা পর্যবেক্ষণ পদ্ধতির মাধ্যমে প্রয়োজনীয় তথ্য সংগ্রহ করা যেতে পারে।

 

৩। গবেষণা পদ্ধতি ও পরিসর নির্ধারণঃ

পূর্বানুমানের মাধ্যমে গবেষণা পদ্ধতি নির্ধারণ করা হয়। এর মাধ্যমে গবেষণার উপযুক্ত পরিসর নির্ধারণ করা হয়, ফলে পূর্বানুমানের সাথে প্রাসঙ্গিক তথ্যগুলোই সংগ্রহ করা হয়।

 

৪। সময় ও অর্থ সাশ্রয়ীঃ

পূর্বানুমানের মাধ্যমে গবেষণার নির্দিষ্ট পরিসর নির্ধারণ করা হয় ফলে গবেষণাকার্যে সময় এবং অর্থ সাশ্রয় হয়।

 

৫। বিধি প্রতিষ্ঠাঃ

তথ্য সংগ্রহের পর যখন তা পূর্বানুমানের সাথে মিলে যায় এবং তা অন্যান্য বিষয় গুলোকে যখন প্রতিনিধিত্ব করে,তখন তা বিধি বা আইনে পরিণত হয়।

 

৬। নতুন জ্ঞানের প্রসার সাধনঃ

পূর্বানুমান হতে প্রাপ্ত তথ্যের ভিত্তিতে যে উপসংহার টানা হয় তা পুরাতন জ্ঞানের ভিত্তিতে নতুন জ্ঞানের আবিষ্কারে সহায়তা প্রদান করে। তাছাড়া পূর্ববর্তী গবেষণার যে অপূর্ণতা থাকে তা পূরণের ক্ষেত্রেও পূর্বানুমান গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে।

 

ÿ বৈধ পূর্বানুমানের শর্তসমূহঃ

যে কোন ধারণা বা অনুমান গবেষণা কাজে ব্যবহারের উপযোগী নয়। একটি সাধারণ ধারণা বা পূর্বানুমানকে উত্তম ব্যবহার উপযোগী হিসেবে বিবেচিত হতে হলে বিশেষ কিছু শর্ত মানতে হয়। নিচে সেগুলো আলোচনা করা হল-

 

১। প্রায়োগিকঃ

একটি বৈধ বা উত্তম পূর্বানুমান বা ধারণার সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ শর্ত হচ্ছে প্রায়োগিক সত্যতা। অর্থাৎ প্রাপ্ত তথ্যের ভিত্তিতে পূর্বানুমানের সত্যতা যদি যাচাই করা না যায় তবে সে ধারণাটি বৈধতা অর্জন করতে পারবে না। অন্যথায় এটি কেবল মাত্র ধারণাই থেকে যাবে।

 

২। সমস্যার উত্তর প্রদানঃ

একটি উত্তম/বৈধ পূর্বানুমান অবশ্যই সমস্যা সমাধানের উপায় বলে দেবে। অর্থাৎ যখন কোন পূর্বানুমান সমস্যার উত্তর দিতে পারে তখন পূর্বানুমানটি বৈধ হবে।

 

যেমনঃ মেয়েদের শিক্ষার হার কম কেন তা অনুসন্ধান করা। যখন পূর্বানুমান এই সমস্যার প্রায়োগিক উত্তর দিতে পারবে তখন তা বৈধ হবে।

 

তবে একটি মিথ্যা পূর্বানুমান বা ধারণা ব্যবহার অনুপযোগী নয়। কারণ এর মাধ্যমে পুনরায় গবেষণায় উৎসাহ জাগতে পারে যা নতুন কিছু আবিষ্কারে সাহায্য করে।

 

৩। তত্ত্বের সাথে সম্পর্কযুক্তঃ

একটি ধারণা বা পূর্বানুমান তখনই বৈধ হবে যখন ধারণাটি প্রতিষ্ঠিত জ্ঞান বা তত্ত্বের পক্ষে যায়। যেমন- “একাকীত্ববোধ অপরাধ প্রবণতার জন্ম দেয়।“ একটি ধারণা যদি সুপ্রতিষ্ঠিত ধারণার বিরুদ্ধে যায় তাহলে সেটি অবৈধ নাও হতে পারে। কিন্তু কোন তত্ত্বের বিপরীতে গেলে সেটি বৈধ নাও হতে পারে।

 

৪। সহজ, সরল ও সুনির্দিষ্ট ধারণাঃ

একটি পূর্বানুমানকে অবশ্যই সুনির্দিষ্ট হতে হবে। তাছাড়া পূর্বানুমান গবেষক ব্যক্তিগত কারণে করে না বরং তা অন্যের স্বার্থে করে। সুতরাং এটি অবশ্যই সহজ,সরল হতে হবে।

 

৫। বর্তমান জ্ঞানকে প্রতিনিধিত্ব করাঃ

পূর্বানুমান তখনই বৈধ হবে যখন তা বর্তমান প্রতিষ্ঠিত জ্ঞানের ক্ষেত্রে সত্য বলে প্রমাণিত হয়। একটি কাল্পনিক ধারণা বা অযৌক্তিক কল্পনা কখনও বৈধ পূর্বানুমান হতে পারে না।

 

পরিশেষে বলা যায় যে,পূর্বানুমানের ক্ষেত্রে উপরোক্ত বৈধতা সম্পর্কে গবেষককে অত্যন্ত সচেতনভাবে অগ্রসর হতে হয়। কারণ গবেষণার ব্যর্থতার জন্য পূর্বানুমানের বৈধতা একটি অন্যতম প্রভাবক।

 

ÿ পূর্বানুমানের প্রকারভেদঃ

পূর্বানুমানকে প্রধানত দুটি ভাগে ভাগ করা যায়। যথাঃ

১। Crude (অশোধিত)

২। Refined (শোধিত)

নিচে এগুলো আলোচনা করা হল-

 

১। Crude (অশোধিত):

এ ধরণের পূর্বানুমান বা ধারণা সাধারণত নিম্ন পর্যায়ের হয়ে থাকে, যেখানে বাস্তব জগতের সাথে সামঞ্জস্যপূর্ণ বিষয় সম্পর্কে ধারণা করা হয়। এ ধরণের পূর্বানুমান দ্বারা উন্নত তাত্ত্বিক গবেষণা করা সম্ভব হয় না।

 

যেমনঃ বাংলাদেশের শহরগুলোতে ছেলেদের মধ্যে বিবাহের প্রবণতা সম্পর্কে একটি প্রকল্প/ পূর্বানুমান হতে পারে, “বাংলাদেশের শহুরে ছেলেদের মধ্যে বেশির ভাগই ২০-২৫ বছর বয়সে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হয়।”

 

২। Refined (শোধিত):

গবেষণার ক্ষেত্রে এ ধরণের পূর্বানুমান খুবই তাৎপর্যপূর্ণ। অপেক্ষাকৃত উচ্চতর পর্যায়ের প্রকল্পে বিভিন্ন ধরণের সাধারণ ধারণা বা প্রাকৃতিক জগতের সামঞ্জস্যপূর্ণতার মধ্যে যৌক্তিক সম্পর্ক নির্ণয়ের চেষ্টা করা হয় এবং এসব সম্পর্কের সত্যতা যাচাই করা হয়।

 

রিফাইন্ড পূর্বানুমানকে আবার তিন ভাগে বিভক্ত করা যায়-

ক)    The simple level

খ)    Complex level

গ)    The very complex

 

নিচে এগুলো সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করা হল-

 

ক) The simple level:

এ ধরণের পূর্বানুমান প্রচলিত সামাজিক আচার-আচরণকে বুঝায়। এর মাধ্যমে তেমন কোন সত্যতা যাচাই করা হয় না।

 

খ) Complex level:

এই ধরণের পূর্বানুমান উচ্চ পর্যায়ের বস্তুনিষ্ট বিষয়ের ক্ষেত্রে করা হয়ে থাকে। এর মাধ্যমে প্রায়োগিক সাদৃশ্যগুলোর মধ্যে যৌক্তিক সম্পর্ক পরীক্ষা করা হয়। এই ধরণের পূর্বানুমান গবেষণা উপকরণের উন্নয়নে কার্যকরী ভূমিকা পালন করে। এটি পরবর্তী পূর্বানুমান বা ধারণা গঠনে সহায়তা করে।

 


গ) The very complex:

এই ধরণের পূর্বানুমান বা ধারণা খুবই জটিল প্রকৃতির। এর মাধ্যমে একাধিক চলকের মধ্যে আন্তঃসম্পর্ক নির্দেশ করে।

যেমনঃ অনুন্নত দেশগুলোতে পরিবার পরিকল্পনা এবং জনসংখ্যা বৃদ্ধি নিয়ে যদি গবেষণা করা হয় তবে, বেশ কিছু, জটিল বিষয় যেমন-সম্পদ,ধর্ম, সংস্কৃতি,ঐতিহ্য,স্বাস্থ্য ইত্যাদি বিষয়গুলো অবশ্যই বিবেচনা করতে হবে।

 

ÿ পূর্বানুমানের গঠনঃ

পূর্বানুমানের গঠন গুলো নিচে আলোচনা করা হল-

1. Hypothesis concerning law:

এর মাধ্যমে ব্যাখ্যা করা হয় কেমন করে একজন প্রতিনিধি কোন নির্দিষ্ট ঘটনাকে প্রভাবিত করে। এক্ষেত্রে যে কাজটি করা হবে তার আইনগত বৈধতা থাকবে যা সকলে আইন হিসেবে জানবে।

2. Hypothesis concerning an agent:

যে কাজটি করা হবে সে আইন সম্পর্কে সকলে জানবে। কিন্তু যে কুশলীর দ্বারা এ আইনের সৃষ্টি সে সম্পর্কে কেউ জানবে না। এই ধরণের পূর্বানুমান গঠন করা হয় এই কুশলী খুঁজে বের করার জন্য।

 

3. Hypothesis concerning collection:

পাশাপাশি অবস্থান বলতে বোঝায় বিভিন্ন ঘটনা একত্রীকরণ।এই পদ্ধতিতে পূর্বানুমান বা ধারণার দ্বারা ইন্দ্রিয়গ্রাহ্য ঘটনা উদঘাটনের জন্য প্রয়োজনীয় ঘটনার সাথে সংযোগ স্থাপন করা হয়।

 

4. Descriptive hypothesis:

এ পদ্ধতিতে কোন ঘটনার সাথে সম্পৃক্ত কারণ ও ফলাফলের মধ্যে সম্পর্ক বর্ণনা করা হয়।

 

5. Explanatory hypothesis:

কোন একটা ঘটনা কেন ঘটেছে তা অনুসন্ধান করার জন্য এই পদ্ধতি ব্যবহার করা হয়। এই পদ্ধতিতে পূর্বে প্রতিষ্ঠিত কোন তথ্যাদি বিচারের মাধ্যমে অজ্ঞাত কোন কিছুর মূল্য বিচার ও বিভিন্ন ঘটনা একত্রিত করে কোন একটি ঘটনার পুনঃগঠন করে।

 

ÿ পূর্বানুমান,তত্ত্ব,আইন এবং ঘটনার মধ্যে সম্পর্ক (Hypothesis, Theory, Law and Fact Relation):

পূর্বানুমান, তত্ত্ব, আইন এবং ঘটনা এগুলো একে অন্যের সাথে খুবই সম্পৃক্ত। অনুসন্ধানের প্রথম পর্যায়ে একটি পূর্বানুমান নির্ধারণ করা হয়, যেটি শুধুমাত্র একটি পরীক্ষামূলক ধারণা বা অনুমান। যখন কোন পূর্বানুমানের সত্যতা যাচাই করা হয় এবং এক পর্যায়ে সত্য বলে প্রমাণিত হয়,তখন এটি তত্ত্বে পরিণত হয়। যখন এই তত্ত্ব প্রমাণিত হয় এবং জনসাধারণ আগ্রহের সাথে গ্রহণ করে, তখন এটি পুনরায় ব্যাখ্যা ও অনুমান করা হয়। এই পর্যায়ে এটি আইনে পরিণত হয়।

 

ঘটনা হচ্ছে একটি বাস্তব জ্ঞান। এটি হতে পারে অভ্যন্তরীণ বা বাহ্যিক (মনের) বিষয়। যেমন- নারী ও পুরুষের সমান অধিকার প্রতিষ্ঠা করা। বাস্তবতার দিক থেকে কোন ঘটনাই পূর্বানুমানে উৎসাহিত করে। এই পূর্বানুমান তত্ত্বে পরিণত হয়; তত্ত্ব আইনে, এবং আইন যখন জনপ্রিয় হয় তখন এটি পুনঃরায় ঘটনায় রূপান্তরীত হয়।

 

Leave a comment

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s

%d bloggers like this: